প্রযুক্তি সমাচার

অনলি ফ্যানস কী? অনলি ফ্যানস এর অন্ধকার দিকসমূহ।

আপনি নিশ্চয় কোথাও না কোথাও জনপ্রিয় অনলি ফ্যানস (OnlyFans) সম্পর্কে শুনেছেন। তবে হয়তো জানেন না অনলি ফ্যানস কী?

প্রযুক্তি প্রিয়‘র আজকের এই আর্টিকেল থেকে অনলি ফ্যানস সম্পর্কে জানতে চলেছেন।

অনলি ফ্যানস কী, এটি কারা ব্যবহার করে, এটি ব্যবহার করা নিরাপদ কিনা, ইত্যাদি।

অনলি ফ্যানস (OnlyFans) কী?

অনলি ফ্যানস হলো ২০১৬ সালে তৈরি একটি অনলাইন স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম এবং অ্যাপ, যেখানে ব্যবহারকারীরা মাসিক সাবস্ক্রিপশন সহ ব্যক্তিগত কন্টেন্ট (ফটো, ভিডিও এবং লাইভ স্ট্রিম) এর জন্য অর্থ প্রদান করতে পারেন।

ফিটনেস প্রশিক্ষক, মডেল, পাবলিক ফিগার এবং অন্যান্য কন্টেন্ট ক্রিয়েটর তাদের ফ্যানবেস বাড়ানো এবং নগদীকরণ (Monetize) করতে প্ল্যাটফর্মটি ব্যবহার করে।

কিন্তু ফেসবুক, ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম এবং স্ন্যাপচ্যাটের বিপরীতে, অনলি ফ্যানস স্পষ্ট যৌন সামগ্রীর অনুমতি দেয়!

অনলি ফ্যানস শুধুমাত্র সাবস্ক্রিপশন দ্বারা, কন্টেন্ট নির্মাতারা নিজেদের নগ্ন ফটো শেয়ার করতে পারেন, পর্নো#গ্রাফিক ভিডিও লাইভ স্ট্রিম করতে পারেন এবং এমনকি তাদের গ্রাহকদের সাথে কার্যত ইন্টারঅ্যাক্ট করতে পারেন।

কার্যকরভাবে, অনলি ফ্যানস হলো লাইভ প#র্ণ। হয়তো এটা তার থেকেও অনেক বেশি কিছু!

কেন অনলি ফ্যানস এত বিপজ্জনক?

প্ল্যাটফর্মটি এমন লোকদের জন্য ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে যারা মহামারী চলাকালীন বেকার হয়ে পড়েছে, তবে এটি যৌন#কর্মীদের মধ্যেও জনপ্রিয়।

সাবস্ক্রিপশনের মাধ্যমে, যেকেউ পর্নো# সাইটে না গিয়েই যৌনকর্মী এবং পর্নো#গ্রাফিক অভিনেতাদের খুঁজে পেতে এবং দেখতে পারেন।

এটি অনলি ফ্যানস কে বাচ্চাদের জন্য বিশেষ করে বিপজ্জনক করে তোলে। 

পর্নো#গ্রাফি, হয়রানি, স্টকিং, এমনকি যৌন পাচার এই ওয়েবসাইটে খুব সাধারণ।

অনলি ফ্যান্স সাইটের আরো অনেক ভয়াবহ দিক আছে, সেগুলো প্রচার না করাই উত্তম বলে মনে করি। তাই ইচ্ছাকৃত ভাবে এড়িয়ে চললাম।

☞ আরো পড়ুন:  বাংলাদেশের প্রথম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন (AI) সংবাদ পাঠিকা!

অনলি ফ্যানস ওয়েবসাইট কি

এমনকি শিশুরাও অনলি ফ্যানস ব্যবহার করছে!

সম্প্রতি অনেক ১৮ বছরের কম বয়সী বাচ্চারাও OnlyFans/অনলিফ্যান্স প্ল্যাটফর্মটিতে কন্টেন্ট বিক্রির দিকে ঝুকে যাচ্ছে৷

যদিও অনলি ফ্যানস দাবি করে যে, বাচ্চাদের প্ল্যাটফর্ম থেকে দূরে রাখার জন্য তাদের যাচাইকরণ প্রক্রিয়া আছে।

তবে এই বাচ্চারা ভূয়া আইডি, পিতামাতার পাসপোর্ট বা বন্ধুদের ফটো ব্যবহার করে তাদের পরিচয় জাল করতে এবং কন্টেন্ট তৈরি করতে শুরু করে।

এই শিশুরা হয়তো সঙ্গীত এবং ফিটনেসের মতো লাইভ স্ট্রিমিং শখের মাধ্যমে শুরু করতে পারে, কিন্তু সহজে আরও সাবস্ক্রাইবার এবং অর্থ পাওয়ার জন্য অনেক নির্মাতারা আরও বেশি অনিরাপদ কন্টেন্ট তৈরিতে আগ্রহী হয়ে উঠে।

কারণ ব্যবহারকারীরা এসব আরো চায় এবং এটির জন্য তারা আরও অর্থ প্রদান করতে প্রস্তুত।

অনলি ফ্যানস কি নিরাপদ বা প্রাইভেট?

অনলি ফ্যানস দাবি করে যে, সাইটের কন্টেন্ট ব্যক্তিগত (Private) এবং সাবস্ক্রিপশন ছাড়া দেখা যাবে না। তবে, এটি সত্য নয়। অনলি ফ্যানস এতটা প্রাইভেট নয়।

সাইটটিতে ক্রিয়েটরদের কন্টেন্টের স্ক্রিনশট, রেকর্ড বা হ্যাক হওয়ার অসংখ্য ঘটনা ঘটেছে।

এসব কন্টেন্ট তারপর ইন্টারনেটে শেয়ার করা হয়। এবং ইন্টারনেটে একবার এগুলো পাবলিক হলে, মুছে ফেলা প্রায় অসম্ভব।

আমরা কীভাবে নিরাপদ থাকতে পারি?

যেহেতু মিমস এবং পপ গানের রেফারেন্সের মাধ্যমে অনলি ফ্যানস এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে, তাই নতুন করে অন্যান্য সেলিব্রিটিরা অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে যাচ্ছেন।

প্রকৃতপক্ষে, সেলিব্রিটি এবং প্রভাবশালীরা প্রায়ই ইন্সটাগ্রাম, এক্স (পূর্বের নাম টুইটার) এবং টিকটকের মতো জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া সাইটগুলিতে ফাঁদ তৈরি করে কিশোর-কিশোরীদের প্রলুব্ধ করে।

তাই আপনাকে অবশ্যই আপনার বাচ্চাদের, নিজেকে এবং আপনার প্রিয়জনকে রক্ষা করতে শিখতে হবে।

যার যার জায়গা থেকে সচেতন থাকতে হবে এবং নিজেকে আত্মসংযমী হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

তাহলেই আমরা নিজেদেরকে অন্ধকার অনলাইনের এই মারাত্মক হুমকির সম্মুখীন থেকে রক্ষা করতে পারবো।

50% LikesVS
50% Dislikes

Robin Miah

আমি রবিন মিয়া, একজন সৌদি আরব প্রবাসী। আমার বাসা টাংগাইলের কালিহাতীতে। প্রযুক্তি বিষয়ক বিভিন্ন তথ্য নিজে জানার জন্য এবং আপনাদের জানানোর উদ্দেশ্যে এই ওয়েবসাইটটি তৈরি করেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!