ইমোহোয়াটসঅ্যাপ

ইমো না কি হোয়াটসঅ্যাপ? কোন অ্যাপটি বেশি ভালো?

ইমো (IMO) এবং হোয়াটসঅ্যাপ (WhatsApp) দুটোই ম্যাসেজিং অ্যাপ্লিকেশন। এই অ্যাপ দুটি অডিও-ভিডিও কলিং, চ্যাটিং এবং শেয়ারিং মিডিয়ার মতো বিভিন্ন উদ্দেশ্যে ব্যাপকভাবে ব্যবহার করা হয়।

কিছু লোক বিভ্রান্ত হয় যে, কোন অ্যাপটি বেশি ভালো? ইমো না কি হোয়াটসঅ্যাপ?

লোকেরা গোপনীয়তা, কলের গুণমান এবং মিডিয়া শেয়ার করে নেওয়ার ক্ষেত্রে এক শতাংশও আপস করতে চায় না।

সুতরাং, তারা সর্বদা ব্যবহার করার জন্য আরও ভালো অ্যাপ খুঁজে বের করার প্রবণতা রাখে। সময়ের সাথে সাথে, উভয়ই অ্যাপগুলিকে আরও সূক্ষ্মভাবে চালানোর জন্য বিভিন্ন ফিচার আপডেট করে চলেছে।

প্লেস্টোর এবং অ্যাপস্টোরে বেশ কিছু ম্যাসেজিং অ্যাপ পাওয়া যায়, তবে সেগুলো ডাউনলোড করার আগে ফিচারগুলোর তুলনা করা উচিত।

প্রযুক্তি প্রিয়‘র এই আর্টিকেলে, আমরা দুটি সর্বাধিক জনপ্রিয় এবং ট্রেন্ডিং ম্যাসেজিং অ্যাপ IMO এবং WhatsApp নিয়ে আলোচনা করব।

আর্টিকেলের শেষে, আপনি আপনার প্রয়োজনীয়তার উপর ভিত্তি করে আপনার জন্য উপযুক্ত সেরা অ্যাপ্লিকেশনটি বেছে নিতে সক্ষম হবেন।

IMO এবং WhatsApp কী?

ইমো এবং হোয়াটসঅ্যাপ হলো ট্রেন্ডিং মেসেজিং অ্যাপ যা ফিচারের ক্ষেত্রে একে অপরের সাথে প্রতিযোগিতা করে।

আপনি যদি আপনার বন্ধুদের মোবাইল নাম্বার পান তবে আপনি তাদের সাথে চ্যাট শুরু করতে পারেন৷

যোগাযোগের নম্বরটি সংরক্ষণ করার পরে, আপনি অ্যাপগুলি ব্যবহার করে যেকাউকে বার্তা পাঠাতে পারেন।

উভয় অ্যাপ থেকে আপনার প্রয়োজন এবং প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী প্রোফাইল সেটিং এবং কাস্টমাইজ করা সম্ভব।

দুর্ভাগ্যবশত, ইন্টারনেটের অনুপস্থিতিতে উভয় অ্যাপ্লিকেশনই মৃত। তাই এই অ্যাপগুলোকে সুচারুভাবে চালানোর জন্য ওয়াইফাই বা মোবাইল ডেটার সাথে সংযোগ করতে হবে।

ইমো না কি হোয়াটসঅ্যাপ? কোন অ্যাপটি বেশি ভালো?

লোকেরা এই অ্যাপগুলি ব্যবহার করে দূরের কারও সাথে সংযোগ করতে। দুটি অ্যাপেই প্রায় একই ধরনের ফিচার্স রয়েছে।

☞ আরো পড়ুন:  ইমোর নতুন iBubble ফিচার চালু করবেন যেভাবে।

এখানে আমরা এই অ্যাপগুলির ফিচার এবং আপডেটগুলি তালিকাভুক্ত করছি যা আপনাকে আরও ভালোটির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করবে৷

ইমো না কি হোয়াটসঅ্যাপ কোনটা বেশি ভালো

০১. ইউজার ইন্টারফেস এবং ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা।

প্রতিটি অ্যাপের একটি নির্দিষ্ট UI এবং UX বিদ্যমান। উভয়েরই তাদের অনন্য ডিজাইন এবং কাস্টমাইজেশন সেটিংস রয়েছে।

IMO এবং WhatsApp উভয়েরই সহজ, পরিষ্কার এবং স্বজ্ঞাত UI আছে। চ্যাট, কন্টাক্ট, স্থিতি এবং সেটিংস অ্যাক্সেস করতে ট্যাব-ভিত্তিক নেভিগেশন বিদ্যমান।

হোয়াটসঅ্যাপের সবুজ রঙের স্কিম রয়েছে আর ইমোতে সাদা। যাইহোক একটি সহজ নেভিগেশন বার এবং সহজবোধ্য ডিজাইনের উপলব্ধতা একটি ব্যবহারকারী-বান্ধব অ্যাপ অভিজ্ঞতা প্রদান করে।

০২. ম্যাসেজিং ফিচার।

এই অ্যাপগুলি অনুরূপ এবং প্রয়োজনীয় মেসেজিং ফিচার প্রদান করে৷ আপনি WhatsApp এর পাশাপাশি IMO-তেও একটি গ্রুপ তৈরি করতে পারেন।

এবং গ্রুপে বা ব্যক্তিগতভাবে বার্তা পাঠাতে পারেন। এমনকি আপনি অডিও বা ভিডিও রেকর্ড পাঠাতে পারেন।অ্যাপগুলি একটি ভয়েস বা ভিজ্যুয়াল ম্যাসেজিং অপশন প্রদান করে।

উভয় অ্যাপ্লিকেশনই ফটো, ভিডিও, নথিপত্র, কন্টাক্ট এবং লোকেশন পাঠাতে ব্যবহৃত হয়।

ব্যবহারকারীরা ফরোয়ার্ডিং অপশন ব্যবহার করে আইটেমগুলি অন্যকে ফরোয়ার্ড বা শেয়ার করতে পারেন।

আপনি যদি আপনার লেখা ম্যাসেজ মোটা (Bold) বা তির্যক (Italic) স্টাইলে ফরমাট করতে চান তাহলে আপনি WhatsApp থেকে এটি সহজেই করতে পারবেন।

তবে ইমোতে কোনো টেক্সট ম্যাসেজ স্টাইলিশ ফরমাট করার জন্য সুযোগ পাবেন না। তবে আপনি এর জন্য তৃতীয় পক্ষের কোনো অ্যাপ বা ওয়েবসাইট ব্যবহার করতে পারেন।

০৩. ভয়েস এবং ভিডিও কলিং।

ব্যবহারকারীরা উভয় ম্যাসেজিং অ্যাপ থেকেই ভয়েস এবং ভিডিও কল করার অভিজ্ঞতা নিতে পারেন।

IMO-তে আপনি কম ইন্টারনেট সংযোগেও আপনার বন্ধুদের সাথে কথা বলতে পারেন।

তবে, WhatsApp-এ কল করার জন্য আপনাকে শক্তিশালী ইন্টারনেটের সাথে সংযোগ করতে হবে।

আর সৌদি আরব সহ মধ্যপ্রাচ্যের কিছু দেশে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে কলে কথা যায় না।

☞ আরো পড়ুন:  হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো ম্যাসেজ এডিট করার নিয়ম।

WhatsApp এর একটি ডেস্কটপ এবং ওয়েব অ্যাপ রয়েছে যেখান থেকে আপনি ভয়েস এবং ভিডিও কল করতে পারেন কিন্তু IMO-তে সে সুযোগ নেই।

IMO-এর তুলনায় WhatsApp উচ্চ-মানের অডিও-ভিডিও কল প্রদান করে। কিন্তু IMO আপনাকে 2G নেটওয়ার্কেও কলে কথা বলার অনুমতি দেয়।

ইমোর তুলনায় হোয়াটসঅ্যাপে ম্যাসেজ এবং কলে কম ডেটা খরচ করে। উভয় অ্যাপ ব্যবহার করে, আপনি অনেক লোকের সাথে কথা বলার জন্য গ্রুপ তৈরি করতে পারেন।

০৪. গোপনীয়তা এবং নিরাপত্তা।

উভয় অ্যাপই ব্যবহারকারীর গোপনীয়তা নিয়ে উদ্বিগ্ন এবং তাই ম্যাসেজ, কল, ফটো এবং ভিডিওর জন্য এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপশন ফিচার প্রদান করে।

এই ফিচারটি কথোপকথনের নিরাপত্তা বাড়াতে সাহায্য করে। কারণ এতে চ্যাট ফাঁস হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

উভয়ই শক্তিশালী সেটিংস প্রদান করে, যার অর্থ ব্যবহারকারীরা তাদের প্রোফাইল ছবি, সর্বশেষ দেখা স্ট্যাটাস এবং বায়ো (Bio) দেখতে পারে এমন লোকেদের সীমিত করতে পারে, যা শেষ পর্যন্ত নিরাপত্তার প্রচারে সাহায্য করে।

০৫. বিজ্ঞাপন।

হোয়াটসঅ্যাপ হচ্ছে বিজ্ঞাপন মুক্ত একটি অ্যাপ্লিকেশন। অপরদিকে ইমোতে বিজ্ঞাপন দেখানো হয়।

তবে আপনি যদি এন্ড্রয়েড ফোন ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন তাহলে Imo Lite অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করতে পারেন। কারণ Imo Lite অ্যাপে বিজ্ঞাপন দেখানো হয় না। বিস্তারিত এখানে…।

০৬. স্টোরেজ সুবিধা।

হোয়াটসঅ্যাপ বার্তাগুলো তাদের সার্ভারের মাধ্যমে যায়। তবে WhatsApp কখনোই তাদের সার্ভারে কোনো বার্তা সংরক্ষণ করে না।

এটি হোয়াটসঅ্যাপ সার্ভারে উপস্থিত থাকবে যতক্ষণ না এটি রিসিভারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়।

বার্তাগুলো শুধুমাত্র আপনার ফোনে সংরক্ষণ করা হয়। আর এরজন্য আপনি যত ম্যাসেজ আদান-প্রদান করবেন সব ডেটা আপনার ডিভাইসের স্টোরেজেই জমা হয়ে থাকবে।

অপরদিকে ইমোর ডেটাগুলো তাদের সার্ভারেই সংরক্ষিত থাকে। তাই ইমোতে ম্যাসেজ আদান-প্রদান করলে তার প্রভাব আপনার ডিভাইসের স্টোরেজে পরবে না।

সামগ্রিকভাবে, উভয় অ্যাপ্লিকেশন প্রায় একই ধরনের ফিচার প্রদান করে। যাইহোক, হাই রিভিউ, আর ইতিবাচক রেটিং এবং মানুষের মধ্যে জনপ্রিয়তা হলো IMO-এর তুলনায় WhatsApp-এর অতিরিক্ত পয়েন্ট৷

☞ আরো পড়ুন:  Whatsapp এর ব্যাকগ্রাউন্ডে আপনার পছন্দের ছবি সেট করে নিন।

যদিও বাংলাদেশের মানুষজন হোয়াটসঅ্যাপের তুলনায় ইমো অ্যাপই বেশি ব্যবহার করে অভ্যস্ত!

আপনাকে অ্যাপ দুটির ফিচার তুলনা করতে হবে এবং আপনার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত অ্যাপটি বাছাই করতে হবে৷

এটি আপনার প্রয়োজনীয়তার উপরও নির্ভর করে এবং অ্যাপটিতে আপনার কোন ফিচার থাকা দরকার তার উপর।

তবে ব্যপারটি এমনও নয় যে, আপনি হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করলে ইমো ব্যবহার করতে পারবেন না। আর ইমো ব্যবহার করলে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন না।

আপনি চাইলে এই দুটি অ্যাপ আপনার ফোনে লগিন করে রাখতে পারেন।

তাহলে আপনি আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী দুটি অ্যাপই ব্যবহার করে দেখতে পারবেন। এবং দুটি অ্যাপেরই ভালো ও মন্দ দিক খোজে পাবেন।

50% LikesVS
50% Dislikes

Robin Miah

আমি রবিন মিয়া, একজন সৌদি আরব প্রবাসী। আমার বাসা টাংগাইলের কালিহাতীতে। প্রযুক্তি বিষয়ক বিভিন্ন তথ্য নিজে জানার জন্য এবং আপনাদের জানানোর উদ্দেশ্যে এই ওয়েবসাইটটি তৈরি করেছি।

Related Articles

Back to top button

Discover more from প্রযুক্তি প্রিয়

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading